সরকারী কর্মকতাদের সঙ্গে অসদাচরণ মানব নাঃ এম.পি অসীম উকিল

সরকারী কর্মকতাদের সঙ্গে অসদাচরণ মানব নাঃ এম.পি অসীম উকিল

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি :  প্রাচীনকাল থেকে যে কথাটি প্রচলিত আছে, তা হল বাড়িতে অতিথি আসলে তাদের অমর্যাদা করলে গৃহস্থের অমঙ্গল হয়। সরকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ আমাদের এলাকার অতিথি। তাই অতিথিদের সঙ্গে কেউ অসদাচরণ ও তাদের অমর্যাদা করলে আমি তা মানব না। এ কাজটি আমার একদম পছন্দের না। আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতা কর্মিদের উদ্দেশ্যে এ কথা গুলো বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক ও নেত্রকোণা তিন আসনের এম.পি অসীম কুমার উকিল। তিনি বলেন, আমি বিভিন্ন সূত্রে জেনেছি আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনের কতিপয় নেতা অফিস পাড়ায় গিয়ে বিভিন্ন কর্মকর্তাদের সঙ্গে অসদাচরণ করেছে। এ কাজটি আমার একদম পছন্দের না। যারা এ কাজ করেন আমি ধরে নেব, আমার ক্ষতির জন্য তা করা হচ্ছে। আমার ক্ষতি মানেই আমার প্রাণপ্রিয় শ্রদ্ধেয় নেত্রি শেখ হাসিনার ক্ষতি। একাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে বিভিন্ন সমাবেশে বলেছি আপনারা আমাকে নৌকা মার্কায় একটি ভোট দিন, আমি আপনাদের সার্বিক উন্নয়নের চেষ্টা করব। অবহেলিত কেন্দুয়া আটপাড়াকে উন্নয়নের মহাসড়কে যুক্ত করব। সরকারী কর্মকর্তাগণ প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসাবে সংবিধান অনুযায়ী কাজ করবেন। তাদের সে কাজের জবাবদিহিতা আছে। সুতরাং তাদের কাজে কেউ মাতাব্বরি করবেন না, বাঁধাও সৃষ্টি করবেন না।  কোন কাজ নিয়ে গেলে না করলে আমাকে বলবেন, আমি সমাধান করব। নিজের হাতে আইন তুলে নিবেন না, অসদাচরনও করবেন না। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কেন্দুয়া পৌরসভাকে তৃতীয় থেকে দ্বিতীয় শ্রেনীতে উন্নীত করায় আনন্দ মিছিল শেষে এক সামবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। পৌর মেয়র মোঃ আসাদুল হক ভ‚ঞার সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ যুব মহিলালীগের সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক অপু উকিল, নেত্রকোনা জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এডভোকেট আমিরুল ইসলাম, কেন্দুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নূরুল ইসলাম, ইউএনও আল-ইমরান রুহুল ইসলাম, প্রেসক্লাব সভাপতি এডভোকেট আব্দুল কাদির ভ‚ঞা, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ মোফাজ্জল হোসেন ভ‚ঞা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তার সুমি, ওসি মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান, জেলা পরিষদ সদস্য মুস্তফিজুর রহমান সেলিম ও আল-আমিন ভ‚ঞা।