১০ বছরে কেন্দুয়া কলেজে একটি নতুন ইটও লাগেনি

১০ বছরে কেন্দুয়া কলেজে একটি নতুন ইটও লাগেনি

সমরেন্দ্র বিশ্বশর্মা কেন্দুয়া (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি ঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনায় সারা দেশে অনেক কলেজ জাতীয় করণ করা হয়েছে। নেত্রকোনার কেন্দুয়া কলেজও জাতীয় করনের অর্ন্তভ‚ক্ত হওয়ায় কলেজের শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকগণ বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছেন। কিন্তু নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নেত্রকোনা-৩ আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুর কাদের কোরাইশী এবং দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ওই আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে ইফতিকার উদ্দিন তালুকদার পিন্টু ১০ বছর নির্বাচনি এলাকার সকল প্রকার উন্নয়ন কর্মকান্ড এগিয়ে নেয়ার প্রচেষ্টা চালান। কিন্তু তারা দুজনই পদাধিকার বলে কলেজ গভর্নিংবডির সভাপতির দায়িত্বে থাকলেও এই ১০ বছরে কেন্দুয়া কলেজ উন্নয়নে একটি নতুন ইটও লাগেনি। এতে শত শত ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক ও সুধিমহলে বিরাজ করছে হতাশা ও ক্ষোভ। অভিভাবকগণ দাবী করে বলেন, গ্রামের গরীব দুখী মানুষের ছেলেমেয়েরা মা বাবার আশ্রয়ে থেকে এই কেন্দুয়া কলেজে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের জন্য ভর্তি হয়। লেখাপড়া করার কাজেও অনেকেই উঠেপরে লাগে। কিন্তু একাডেমিক ভবনে ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান কার্যক্রম সুষ্ঠু ভাবে সংকুলান না হওয়ায় ক্রমশই তারা কলেজে আসা যাওয়া বন্ধ করে দেয়। তারা আরো বলেন, নবম ও দশম জাতীয় সংসদের দুজন সংসদ সদস্য কলেজ গভর্নিংবডির সভাপতির দয়িত্বে থাকলেও কলেজ একাডেমিক ভবনের উন্নয়নে একটি নতুন ইটও লাগেনি। এরচেয়ে দুঃখ জনক আর কি হতে পারে? সুধিমহলের প্রশ্ন যদি বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশের কলেজগুলো জাতীয়করণের পরিকল্পনা গ্রহণ না করতেন সে ক্ষেত্রে এই কেন্দুয়া কলেজ কোন অবস্থাতেই জাতীয়করণ হতোনা। এলাকার সচেতন মহল এবার তাকিয়ে আছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এম.পি ও তার সহধর্মিনী বাংলাদেশ যুব মহিলালীগের সাধারন সম্পাদক সংরক্ষতি আসনের সাবেক এম.পি অধ্যাপক অপু উকিলের বলিষ্ট নেতৃত্বের দিকে। ইতিমধ্যে স্থানীয় রাজনৈতিক ও সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ নেত্রকোনা থেকে কেন্দুয়া এবং আঠারোবাড়ি থেকে ঈশ্বরগঞ্জ সড়ক উন্নয়ন মহাসড়কে যুক্ত করায় বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিবৃতি দিয়েছেন। একই সঙ্গে তারা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিভিন্ন সভা সমাবেশে কেন্দুয়া আটপাড়া এলাকাকে উন্নয়নের মহাসড়কে যুক্ত করার জন্য যে অঙ্গীকার ও প্রতিশ্রæতি দিয়েছিলেন অসীম কুমার উকিল তা ৬ মাসের মধ্যেই মহাপরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের পথে এগিয়ে যাওয়ায় তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে। সবার আশা কেন্দুয়া সরকারি কলেজ নতুন একাডেমিক ভবনের বাইরে থাকবেনা এবার।