ধোবাউড়ায় প্রকাশ্যে চলছে মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয়  

ধোবাউড়ায় প্রকাশ্যে চলছে মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয়  

ধোবাউড়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ঃ ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধে সয়লাব ধোবাউড়া উপজেলার অধিকাংশ ফার্মেসি। প্রকাশ্যেই চলছে মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয়। অধিকাংশ ফার্মেসির কোন অনুমোদন নেই, বিক্রয় কর্মীদের নেই প্রশিক্ষণ। প্রেসক্রিপশন ছাড়াই বিক্রি হচ্ছে এন্টিবায়োটিক। অভিযোগ রয়েছে, ঔষধের যে অংশটিতে মেয়াদ লেখা থাকে সে অংশটি কাঁচি দিয়ে কেটে মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয় করছে অসাধু বিক্রেতারা। সরেজমিনে ধোবাউড়া বাজারের ‘মেডিসিন কর্ণার’ নামক দোকানে গিয়ে দেখা যায়, দোকানের সামনে কাউন্টারের উপর সাজিয়ে রাখা ঐষধগুলোর অধিকাংশের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। দোকানটিতে ফেব্রæয়ারি ২০২১-এ মেয়াদ শেষ হওয়া ফেরোলিন টি আর, এগোক্সিন, মে ২০২১-এ মেয়াদ শেষ হওয়া ক্যানাজোল ২০০’সহ মেয়াদোত্তীর্ণ বিভিন্ন ঔষধ সাজানো অবস্থায় পাওয়া যায়। এ বিষয়ে মেডিসিন কর্ণারের পরিচালক রিপন কুমার ঘোষ বলেন, ‘ফেরত দেওয়ার জন্য জন্য মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধগুলো সামনে রাখা হয়েছে।’ মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধের সাথে মেয়াদ আছে এমন ঔষধ রাখা হয়েছে কেন, প্রশ্ন করলে এড়িয়ে যান তিনি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ক্রেতা জানান, এক পাতা ট্যাবলেট কেনার পর তিনি দেখতে পান মেয়াদের অংশটি কাটা অবস্থায় রয়েছে। পরে তিনি ঔষধগুলো ফেরত দিয়ে দেন। ধোবাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাফিকুজ্জামান জানান, এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।