আল্লাহর পক্ষ থেকে জান্নাতের সুসংবাদ পেলেন যারা

আল্লাহর পক্ষ থেকে জান্নাতের সুসংবাদ পেলেন যারা

জান্নাত মুমিনের শেষ ঠিকানা। সুনির্দিষ্ট কিছু নীতিমালার আলোকেই এ ঠিকানার মালিক হবেন মুমিন। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমের একাধিক স্থানে এ সম্পর্কে সুস্পষ্ট ঘোষণা দিয়েছেন। মুমিন বান্দার জন্য সে ঘোষণাগুলো কী?
মুমিনরা কখনো হতাশ হয় না। সব সময় আশায় থাকেন। এটি মহান আল্লাহর ঘোষণা। আল্লাহ তাআলা জান্নাত পাওয়ার জন্য মুমিনদের উদ্দেশ্যে কিছু শর্ত জুড়ে দিয়েছেন। যেসব শর্ত ও হুকুম পালন সাপেক্ষে বান্দা জান্নাতের অধিকারী হবে। আল্লাহ তাআলা একাধিক আয়াতে ঘোষণা করেন-
إِنَّ الَّذِينَ قَالُوا رَبُّنَا اللَّهُ ثُمَّ اسْتَقَامُوا فَلَا خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلَا هُمْ يَحْزَنُونَ - أُوْلَئِكَ أَصْحَابُ الْجَنَّةِ خَالِدِينَ فِيهَا جَزَاء بِمَا كَانُوا يَعْمَلُونَ
নিশ্চয়ই যারা বলে, আমাদের পালনকর্তা আল্লাহ; অতঃপর অবিচল থাকে, তাদের কোনো ভয় নেই এবং তারা চিন্তিতও হবে না। তারাই জান্নাতের অধিকারী! তারা তথায় চিরকাল থাকবে। তারা যে কাজ করত, এটা তারই প্রতিফল।’ (সুরা আহকাফ : আয়াত ১৩-১৪


إِنَّ الَّذِينَ قَالُوا رَبُّنَا اللَّهُ ثُمَّ اسْتَقَامُوا تَتَنَزَّلُ عَلَيْهِمُ الْمَلَائِكَةُ أَلَّا تَخَافُوا وَلَا تَحْزَنُوا وَأَ بِالْجَنَّةِ الَّتِي كُنتُمْ تُوعَدُونَ - نَحْنُ أَوْلِيَاؤُكُمْ فِي الْحَيَاةِ الدُّنْيَا وَفِي الْآخِرَةِ وَلَكُمْ فِيهَا مَا تَشْتَهِي أَنفُسُكُمْ وَلَكُمْ فِيهَا مَا تَدَّعُونَ
‘নিশ্চয়ই যারা বলে, আমাদের পালনকর্তা আল্লাহ! অতঃপর তাতেই অবিচল থাকে, তাদের কাছে ফেরেশতা অবতীর্ণ হয় আর বলে, তোমরা ভয় কর না, চিন্তা কর না। আর তোমাদের প্রতিশ্রুত জান্নাতের সুসংবাদ শোন। ইহকালে ও পরকালে আমরা তোমাদের বন্ধু। সেখানে তোমাদের জন্য তা আছে; যা তোমাদের মন চায় এবং সেখানে তোমাদের জন্য তা আছে; যা তোমরা দাবী কর।’ (সুরা হা-মিম সাজদা : আয়াত ৩০-৩১)
আল্লাহর এসব ঘোষণার প্রেক্ষিতে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকে জান্নাতে যাওয়ার কিছু বিষয় তুলে ধরেন। হাদিসে এসেছে-
হজরত উবাদাহ ইবনে সামেত রাদিয়াল্লাহু আনহু রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা
করেছেন-
যে ব্যক্তি এ কথার সাক্ষ্য দেবে যে, ‘এক আল্লাহ ছাড়া আর কোনো প্রকৃত ইলাহ নেই, তাঁর কোনো শরিক নেই, আর মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর বান্দা ও রাসুল; ঈসা আলাইহিস সালাম তাঁর বান্দা ও রাসুল এবং আল্লাহর কালেমা যাকে তিনি মারিয়ামের কাছে পাঠিয়েছেন। আর আল্লাহর পক্ষ থেকে রূহ। আর জান্নাত সত্য, জাহান্নাম সত্য। আল্লাহ তাকে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন, তার আমল যাই হোক না কেন।’ (বুখারি ও মুসলিম) হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘জান্নাত পেতে আগ্রহী নয়; এমন ব্যক্তি ছাড়া আমার সব উম্মাতই জান্নাতে প্রবেশ করবে। সাহাবাগণ বললেন, ‘হে আল্লাহর রাসুল! কে এমন ব্যক্তি আছে; যে জান্নাতে যেতে অস্বীকৃতি জানায়? রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ‘যে ব্যক্তি আমার আনুগত্য করবে সে জান্নাতে যাবে, আর যে আমার নাফরমানি করবে ও অবাধ্য হবে, সেই জান্নাতে যেতে অস্বীকার করে।’ (বুখারি) মুমিন মুসলমানের উচিত, কুরআন ও হাদিসে ঘোষিত গুণ অর্জনে মাধ্যমে জান্নাতের অধিকারী হওয়ার চেষ্টা করা। আল্লাহর সঙ্গে কাউকে শিরক না করা। শেষ নবিসহ সব নবি-রাসুলকে আল্লাহর পক্ষ থেকে প্রেরিত নবি হিসেবে বিশ্বাস করা। সুতরাং সফলকাম তারাই, যারা নিজেদের জীবনকে কুরআন-সুন্নাহর আলোকে সাজাতে পেরেছেন। নিজেদের জান্নাতের জন্য তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন। আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে কুরআন-সুন্নাহর দিকনির্দেশনাগুলো মেনে জান্নাতের অধিকারী হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।