ঘূর্ণিঝড়ে কেন্দুয়ার চারটি গ্রামের শতাধিক ঘর বাড়ি লন্ডভন্ডঃ ঘরহারা মানুষেরা আশ্রয় নিয়েছে স্বজনদের বাড়িতে

ঘূর্ণিঝড়ে কেন্দুয়ার চারটি গ্রামের শতাধিক ঘর বাড়ি লন্ডভন্ডঃ ঘরহারা মানুষেরা আশ্রয় নিয়েছে স্বজনদের বাড়িতে

সমরেন্দ্র বিশ্বশর্মা, কেন্দুয়া প্রতিনিধি: মাত্র পনেরো মিনিটের প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড়ে নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার বলাইশিমুল ও নওপাড়া ইউনিয়নের একটি বাজার সহ চারটি গ্রামের শতাধিক ঘর বাড়ি লন্ডভন্ড করে দিয়েছে। অনেক বাড়ি ঘর আধা কিলোমিটার দূরে উড়িয়ে নিয়ে গেছে। ঘূর্ণিঝড়ে ঘরহারা মানুষেরা জীবন 
বাঁচাতে আশ্রয় নিয়েছে স্বজনদের বাড়িতে। 
    
সোমবার বেলা অনুমান একটার দিকে কেন্দুয়া উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঘূর্ণিঝড়ে বলাইশিমুল ইউনিয়নের বালিজুড়া বাজার সহ ভরাপাড়া, নোয়াদিয়া ও লস্করপুর এবং নওপাড়া ইউনিয়নের পুড়াবাড়ি গ্রামের ১শ ৩৫টি পরিবারের বসতবাড়ি লন্ডভন্ড হয়ে যায়। ঝড়ে অনেক গাছপালা উপরে পড়ে গেছে। ছিড়ে গেছে বিদ্যুতের তার। ঘর চাপা পড়ে ভরাপাড়া গ্রামের রইছ উদ্দিনের স্ত্রী তাহেরা খাতুন সহ ৮জন আহত হন। তবে আশংকাজনক অবস্থায় তাহেরা খাতুনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় ছুটে যান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নূরুল ইসলাম, ইউএনও মোঃ মইন উদ্দিন খন্দকার, পিআইও মেহেদি হাসান মৃধা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট আব্দুল কাদির ভ‚ঞা, সাধারন সম্পাদক পৌর মেয়র মোঃ আসাদুল হক ভ‚ঞা, ওসি কাজী শাহ নেওয়াজ সহ দলীয় অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। বলাইশিমুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী আকবর তালুকদার মল্লিক জানান, বালিজুড়া বাজার সহ লস্করপুর, নোয়াদিয়া ও ভরাপাড়া গ্রামের ১শ ১৪টি পরিবারের ঘরবাড়ি গাছপালা ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এসব পরিবারের তালিকা তৈরি করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ে জমা দিয়েছেন। 

তিনি বলেন, আনুমানিক অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম জানান, পুড়াবাড়ি গ্রামের ২১টি পরিবারের ঘর বাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তিনি ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরি করে উপজেলা প্রশাসনে জমা দিয়েছেন। প্রায় ৯ লাখ টাকার ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন। ক্ষতিগ্রস্থরা এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত কোনপ্রকার সরকারি বেসরকারি সাহায্য সহযোগিতা পায়নি।  উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেহেদি হাসান মৃধা জানান বুধবার ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে এমপি অসীম কুমার উকিলের উপস্থিতিতে চাল, ডাল, লবন, পেয়াজ, আলু, চিড়া, মুড়ি, বিস্কিট সহ অন্যান্য সামগ্রী বিতরন করা হবে। ইউএনও মোঃ মইন উদ্দিন খন্দকার জানান, ক্ষতিগ্রস্থ ১শ ৩৫টি পরিবারের তালিকা তালিকা যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট পাঠানো হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে বরাদ্দ এলেই ক্ষতিগ্রস্থদের পরবর্তী সহযোগিতা করা হবে।