বয়স্ক ভিক্ষুককে চুরির দায়ে বেঁধে অমানষিক নির্যাতন, আটক ১

বয়স্ক ভিক্ষুককে চুরির দায়ে বেঁধে অমানষিক নির্যাতন, আটক ১

জাকির আহমেদ, মদন প্রতিনিধি: ধান চুরির অভিযোগে নেত্রকোনার মদনে আব্দুল বারেক(৫৫) নামের এক বয়স্ক ভিক্ষুককে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন চালানো হয়েছে। 

ভিক্ষুক পেটানোর একটি ভিডিও এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।   

কয়েক ঘণ্টাব্যাপী অমানুষিক নির্যাতনের পর তাকে পুলিশে হস্তান্তর করে নির্যাতন কারীরা। 

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার(২৮ এপ্রিল) উপজেলার গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নের বারগড়ির পূর্বহাটি গ্রামে। এ ঘটনায় মাসুদ নামে এক যুবক কে ওই রাতেই আটক করেছে মদন থানার পুলিশ। মাসুদ গোবিন্দশ্রী গ্রামের মৃত মুক্তার আলীর ছেলে।

জানা গেছে, আব্দুল বারেক নামের ওই ভিক্ষুক  ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার বনহাটি গ্রামের মৃত আব্দুল গফুরের ছেলে। তিনি হাওরাঞ্চলে ধান কাটার সময় ভিক্ষা করতে এসেছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, কয়েক বছর ধরে ওই ভিক্ষুক বৈশাখ এলে গোবিন্দশ্রী গ্রামে এসে ধান ভিক্ষা করেন। এ বছর গোবিন্দশ্রী গ্রামের আব্দুল খালেক এর ছেলে ঝুমন এর পরিত্যাক্ত ঘরে বসবাস করে ভিক্ষা করছিলেন। গত বুধবার(২৮ এপ্রিল) সকালে মুক্তার হোসেন এর ছেলে খাইরুল ধান চুরির অভিযোগে ভিক্ষুককে বেধে রাখে। পরে তার ছোট ভাই মাসুদসহ কয়েকজন ঘন্টাব্যাপী ওই ভিক্ষুকের উপড় অমানুষিক নির্যাতন চালায়। নির্যাতনের পর মদন থানার পুলিশ কে খবর দিলে পুলিশ ২ বস্তা ধানসহ ওই ভিক্ষুকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পরে নির্যাতনের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হলে রাত আনুমানিক ২ টার দিকে মাসুদকে আটক করা হয়।

এ ব্যাপারে খাইরুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বুধবার(২৮ এপ্রিল) সকালে আমার বসত ঘর থেকে আব্দুল বারেক ধান চুরি করে। থাকে মারধর করে পুলিশ কে খবর দিলে তারা এসে ২ বস্তা ধানসহ তাকে থানায় নিয়ে যায়। পরে পুলিশ তাকে মদন হাসপাতে চিকিৎসা করে থানায় নিয়ে আসে।  

মদন থানার অফিসার ইনচার্য(ওসি) ফেরদৌস আলম জানান, এ ঘটনায় মাসুদ নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতির চলছে।