কলমাকান্দায় পূর্বশত্রুতার জেরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা আহত ১০

কলমাকান্দায় পূর্বশত্রুতার জেরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা আহত ১০

স্টাফ রিপোর্টার : নেত্রকোণার কলমাকান্দায় প‚র্বশত্রুতার জেরে একটি দোকানঘর হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে ওই এলাকার নবী হোসেন গংদের বিরুদ্ধে । এতে ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলামসহ তার আত্মীয় স্বজন ৮/ ১০ জন আহত হয়েছেন। প্রায় চার লক্ষাধিক টাকা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ব্যবসায়ী রফিকুল। সে ইউনিয়নের সরকারি খুচরা সার ডিলার।

এখবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে উভয় পক্ষের মধ্যে ফের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। পরে খবর পেয়ে লে্গংুরা ইউনিয়নের বিট অফিসার কলমাকান্দা থানা পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর মো. নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ফোর্স দ্রæত উপস্থিত হয়ে এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য কলমাকান্দা সরকারি হাসপাতালে প্রেরণ করেন। 


স্থানীয় ও পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, প্রায় ৭ বছর ধরে উপজেলার লেংগুরা ইউনিয়নের গৌরিপুর গ্রামের আফাজ উদ্দিনের পুত্র ব্যবসায়ী মো. রফিকুল ইসলাম বটতলা বাজারের সরকারি বিটে সরকারি নিয়মে একসনা বন্দোবস্ত নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। কিন্ত প্রায় এক বছর ধরে ওই সরকারি বিট জোরপ‚র্বক বেদখল নিতে মরিয়া একই ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের আব্দুর রহিমের পুত্র নবী হোসেন গং। 

মঙ্গলবার দুপুরে নবী হোসেনের নেতৃত্বে ৪০/৫০ জন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পরিকল্পিতভাবে ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালায়। তাকে ব্যপক মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করে ওই দোকান ঘর বেদখল নিতে চেষ্টা চালায়। ওই খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে রফিকুল ইসলামের তার আত্মীয় স্বজন বাজারের দিকে ছুটে আসেন। উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এতে ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলামসহ তার আত্মীয় স্বজন ৮/ ১০ জন আহত হয়। তাদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য কলমাকান্দা সরকারি হাসপাতাল ভর্তি করা হয়েছে। 

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য নবী হোসেনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। 

উল্লেখ্য যে, গেল বছর আগস্ট মাসেও ওই সরকারি বিট বেদখল নেওয়ার জন্য হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট চালায় নবী হোসেন গং। ওই ঘটনায় ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম নিজে বাদী হয়ে নেত্রকোণা জেলা আদালতে দুটি মামলা দায়ের করেছেন এবং আদালতে মামলা চলমান আছে ।