নেত্রকোণায় জাতীয় গ্রন্থগার দিবস উদযাপন ও এআরএফবি গ্রন্থগার সম্মাননা ২০২১ প্রদান 

নেত্রকোণায় জাতীয় গ্রন্থগার দিবস উদযাপন ও এআরএফবি গ্রন্থগার সম্মাননা ২০২১ প্রদান 

বিশেষ প্রতিনিধিঃ   নেত্রকোণা জেলা প্রশাসন, জেলা গণগ্রন্থাগার ও এআরএফবি গ্রন্থাগার এর আয়োজনে ৪র্থ জাতীয় গ্রন্থগার দিবস উদযাপন ও এআরএফবি গ্রন্থগার সম্মাননা ২০২১ প্রদান করা হয়েছে। 

শুক্রবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) নেত্রকোণা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। 
নেত্রকোণা জেলা সরকারি গণগ্রন্থাগারের লাইব্রেরিয়ান মোঃ দেলুয়ার হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমান, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নেত্রকোণা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্বিক) আল আমীন হোসাইন, আব্দুর রহমান ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক দিলওয়ার খান, জেলা গ্রন্থাগার সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আজিজুর রহমানসহ নেত্রকোণা জেলার সকল নিবন্ধিত গ্রন্থাগারের পরিচালক বৃন্দ।

আলোচনা শেষে অনুষ্ঠানে জেলার সাকুয়া বাজারস্থ এআরএফবি গ্রন্থাগারের উদ্যোগে তিনটি ক্যাটাগরিতে জেলার গুনীজনদের সম্মাননা স্মারক ও সনদপত্র তুলে দেওয়া হয়। 

এআরএফবি গ্রন্থাগার সম্মাননা ২০২১ পেয়েছেন,বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য দৈনিক সমকাল এর সিনিয়র সাংবাদিক ও দৈনিক বাংলার দর্পণ এর নির্বাহী সম্পাদক মোঃ খলিলুর রহমান শেখ ইকবাল, তিনি পেশায় একজন সাংবাদিক, দৈনিক সমকাল পত্রিকার নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি ও নেত্রকোণা জেল থেকে প্রকাশিত  দৈনিক বাংলার দর্পন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক। নেত্রকোনা সদর উপজেলার কাঠলিতে ১৯৬৫ সালের অক্টোবর মাসে মরহুম আজিজুর রহমান শেখ ও মোছাঃ নুরজাহান বেগম এর ঘরে জন্মগ্রহণ করেন এই গুণী ব্যাক্তি। তাঁর এক বড় ভাই মো: হাবিবুর রহমান শেখ দৈনিক জাহান  পত্রিকার  সম্পাদক ও দৈনিক বাংলার দর্পন এর প্রকাশক। কর্মময় জীবনে তিনি সাংবাদিকতায় কাটিয়েছেন জীবনের পুরো সময়। ১৯৮৮ সালে দৈনিক জাহান এর সহ-সম্পাদক ও ১৯৯১ সালে দৈনিক বাংলার দর্পন পত্রিকার বার্তা সম্পাদক, এবং ২০০৫ সাল থেকে চ্যানেল ওয়ান এর নেত্রকোণা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কৃতিত্বের সাথে দ্বায়িত্ব পালন করে আসছেন।

এবং তথ্যসমৃদ্ধ লেখনীতে কবিতা ও ছড়ায় বিশেষ অবদানের জন্য পেয়েছেন সময়ের আত্মকথা গ্রন্থস্বত্ব কবি খোরশেদ আলী তালুকদার।খোরশেদ আলী তালুকদার বর্তমানে লেখালেখির সাথে সম্পৃক্ত। পিতার মৃত আক্তার উদ্দিন তালুকদার, মাতা মৃতা মোছাঃ খোদজা বেগম। খোরশেদ আলী তালুকদার তার পিতার মাতার ৭ ভাই ও বোনের মধ্যে তিনি চতুর্থ। পিতা কর্মজীবনে থানা স্বাস্থ্য সহকারী ছিলেন। জন্ম ১১ জানুয়ারি ১৯৫৩ সালে নেত্রকোণা জেলার পূর্বধলা উপজেলার আমতলায়। শিক্ষাজীবনে তিনি  ১৯৭২ সালে রংপুর থেকে কৃষি ডিপ্লোমা করেন। কর্মজীবনে ১৬ই ফেব্রুয়ারি ১৯৭৩ সালে বিএডিসির রংপুর জোন অফিসে সাব ইউনিট অফিসার পদে যোগদান করে। ও ১০ ই জানুয়ারি ২০১০ সালে। ২০১২ সালে হজব্রত পালন করেন। এ যাবত প্রায় সাড়ে তিন শতাধিক কবিতা লিখেছেন। তার মধ্যে ৬২ টি কবিতা নিয়ে ২০১৬ সালে ২১ শে বই মেলার সময় “সময়ের আত্মকথা” নামে একটি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়। ২০১৬ সালে পূর্বধলা এসি ক্লাব এর বর্ষপূর্তিতে সংবধিত হন। কবির চারটি পান্ডুলিপি বই আকারে প্রকাশ করার অপেক্ষায় রয়েছে। কবির ৭০ টিরও বেশি কবিতা নেত্রকোণা জেলার ইকরা প্রতিদিন পত্রিকার সহ বিভিন্ন স্থানীয় প্রত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। ৫টি কবিতা  এবি ৭১ টিভিতে আবৃতায়ন করা হয়। বৈবাহিক জীবনে ১৯৭৪ সালে তিনি মোছাঃ আনোয়ারা খাতুন এর সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বর্তমানে তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ের  জনক।

নেত্রকোণার লোকসাহিত্য নিয়ে গবেষণার জন্য পেয়েছেন সাংবাদিক ও কবি এমদাদ খান। এমদাদ খান কবি, সাংবাদিক ও নেত্রকোণার লোকজ গবেষক। জন্ম নেত্রকোণা সদর উপজেলার চল্লিশা ইউনিয়নের অন্তর্গত বাগড়া গ্রামে। পিতাঃ মরহুম এলাহি নেওয়াজ খান। মাতাঃ মরহুম আছিয়া আক্তার। শিক্ষা জীবনে তিনি শ্যামগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ময়মনসিংহ আনন্দমোহন কলেজ থেকে এইচএসসি, এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে অনার্স-মাস্টার্স পাশ করেন। পেশাগত জীবনে তিনি সাংবাদিকতা এবং লেখালেখি করেই কাটিয়েছেন জীবনের পুরোটা সময়। তিনি ২০০৪ থেকে-২০১০ পর্যন্ত রাজধানী বার্তা পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সামাজিক ও সাংগঠনিক ব্যাক্তিত্বের অধিকারী এই কবি বাংলা একাডেমী ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সদস্য। বৃহত্তর ময়মনসিংহ সমিতি ঢাকার আজীবন সদস্য, মহুয়া সাংস্কৃতিক ফোরাম, ঢাকা এর সভাপতি ও ড. হুমায়ুন আজাদ ফাউন্ডেশন, ঢাকার সহসভাপতি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থসমূহ হলো, কাননে ফোটেনি কুসুম, কষ্ট ভুলে অষ্টপ্রহর, গীত বিচিত্রা, নির্বাচিত কবিতা, বিশ্বাসে বঙ্গবন্ধু নিশ্বাসে বাংলাদেশ, নেত্রকোণা জেলা পরিচিতি, নেত্রকোণার কবি ও কবিতা, লড়াই-সংগ্রাম-আন্দোলনে নেত্রকোণা, নেত্রকোণার লোকসাহিত্য ভান্ডার ও মৈমনসিংহ গীতিকা, নেত্রকেণার লেখক পরিচিতি, দিঘির জলে পদ্মফুল ও এই বসন্তে। এছাড়াও দৈনিক সংবাদ মাসিক কারিগর ও দৈনিক জননেত্র পত্রিকাসহ বেশ কিছু পত্রিকায় এই গুণী ব্যাক্তির লেখা ছাপা হয়ে থাকে।