পূর্বধলার সহোদর ভাইকে হত্যা মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার

পূর্বধলার সহোদর ভাইকে হত্যা মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার


নেত্রকোনার পূর্বধলায় হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামী মোহাম্মদ আলী (৫০) নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) ভোর রাতে গাজীপুরের গাছা থানা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। শ্যামগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ- পরিদর্শক (এসআই) মো. মোনাহার হোসেন জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে তিনি সঙ্গীয় ফোর্সসহ বৃহস্পতিবার ভোর রাতে গাজীপুরের গাছা থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে নিজ ভাইকেকে হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত ওই আসামিকে গ্রেফতার করেন ।
প্রসঙ্গত, চলতি বছরের গত ১১ অক্টোবর সকালে নেত্রকোনার পূর্বধলায় বাঁশ কাটাকে কেন্দ্র করে উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়নের পাইকুড়া গ্রামের মৃত ফজর আলীর ছেলে ইমান আলীকে (৬০) কুপিয়ে হত্যা করে তারই সহোদর আমজাদ আলী (৫৫), আহাম্মদ আলী (৪০) ও মোহাম্মদ আলী (৫০)।
এ ঘটনায় নিহতের ছেলে এন্টাস মিয়া বাদী হয়ে ৭জনকে আসামী করে পূর্বধলা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।
পূর্বধলা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. রফিকুল ইসলাম জানান, শুক্রবার সকালে গ্রেফতারকৃত আসামীকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পূর্বধলায় জমি সংক্রান্ত জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুতর আহত ২
পূর্বধলা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি: নেত্রকোনার পূর্বধলায় ধলামূলগাঁও ইউনিয়নের দত্তকুনিয়া গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় মো: তারা মিয়া (৩৭) ও মোছা: শিউলী (৩৭) নামের দুজন গুরুতর আহত হয়েছে । জখমী তারা মিয়া দত্তকুনিয়া গ্রামের মৃত শেখ শামছুদ্দিনের ছেলে এবং জখমী শিউলী একই গ্রামের মো: শহিদের স্ত্রী। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) বেলা ১০ ঘটিকার দিকে জখমীদের স্বত্বদখলীয় জমি জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা করিলে জখমী তারা মিয়া বাঁধা সৃষ্টি করলে একই গ্রামের ফজল হকের হুকুমে ছেলে মো: আলামিন তারা মিয়াকে আটকিয়ে রাখে এবং ফজল হকের অপর ছেলে রতন মিয়ার হাতে থাকা রামদা দিয়ে খুন করার উদ্দেশ্যে তারা মিয়ার মাথায় কুপ দিয়ে গুরুতর আহত করে। রতন মিয়া গংদের হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে শিউলীকে আঘাত করে। পরে এলাকাবাসী গুরুতর আহত অবস্থায় তারা মিয়া ও শিউলী কে পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

জখমী শিউলীর স্বামী মো: শহিদ জানান, আমি উক্ত জমিটির দলিল মূলে মালিক এবং পূর্ব হতেই আমি স্বত্বদখলকার। তাছাড়াও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ফসলাদি উৎপাদন করে আসছি। সম্প্রতি রতন মিয়া গং আমার এই জমিতে জোরপূর্বক দখল করার চেষ্টা করছে। কয়েকদিন পূর্বে এবিষয়ে পূর্বধলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করি। থানার পুলিশ উপ পরিদর্শক আব্দুল মালেক তাদেরকে নোটিশ জারি করিলেও তারা কোন কর্নপাত করেনি। তারই জেরে আজ আমার ছোট ভাই তারা মিয়া ও আমার স্ত্রী শিউলীকে গুরুতর জখম করে এবং আমার স্ত্রীর গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন চিনিয়ে নেয় যার মূল্য ৬৫ হাজার। জোরপূর্বক জমি দখল করা এদের নেশা ও পেশা। তারা দত্তকুনিয়া গ্রামে গ্যাং তৈরী করে বেআইনী ভাবে জমিজমা দখল করে আসছে। এক কথাই ভূমিদস্যু। 

পূর্বধলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ তাওহীদুর রহমান বলেন,  এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।