আটপাড়ায় স্বাস্থ্য সহকারীদের বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কর্মবিরতি

আটপাড়ায় স্বাস্থ্য সহকারীদের বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কর্মবিরতি

 

সারা দেশের ন্যায় স্বাস্থ্য সহকারীদের বেতন –বৈষম্য নিরসনের দাবিতে নেত্রকোনার আটপাড়ায় ২৬শে নভেম্বর) বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিসট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশন আটপাড়া উপজেলা শাখার আয়োজনে বেতন –বৈষম্য নিরসন, নিয়োগবিধি সংশোধন করার দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছেন আটপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা। তাঁদের দাবি পূরণে প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মবিরতি অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিসট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশন আটপাড়া উপজেলা শাখার সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

 

তাঁদের দাবি হলো, নিয়োগবিধি সংশোধনসহ ক্রমানুসারে স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীদের বেতন গ্রেড ১৬তম থেকে যথাক্রমে ১১, ১২ ও ১৩তম গ্রেডে উন্নীতকরণ।:

 

 এর সময় উপস্থিত ছিলেন দাবী বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক শংকর কুমার রায়, স্বাস্থ্য পরিদর্শক (ইনচার্জ),  যুগ্ম আহবায়ক তহমিনা খানম, স্বাস্থ্য পরিদর্শক,  সদস্য সচিব মুহাম্মদ মানিক মিয়া, স্বাস্থ্য সহকারী, সদস্য সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক সারওয়ার জাহান, লিপি রানী চন্দ, রমা রানী,  রওশন আরাখানম, স্বাস্থ্য সহকারী জহিরুল ইসলাম,  তারিকুল ইসলাম, আসমা আক্তার, সুরাইয়া আক্তার, নাছিমা আক্তার, এমদাদুল হক, জাকারিয়া, নুরজাহান, স্মৃতি রেখা,  মাহমুদা ইয়াসমিন, জুবায়দা নাজনিন, নওরীন জাহান, জোস্না আক্তার, দিপালী বনিক, শহীদুল ইসলাম, লিপি রানী, হানিফ মিয়া, মেহেরুন্নেছা, তাসলিমা আক্তার, শাহনাজ আক্তার, স্বরবিন্দু সরকার প্রমুখ

বক্তারা বলেন, ৭০–এর দশকে পরীক্ষামূলকভাবে এসব স্বাস্থ্য সহকারীদের শুধু বসন্ত ও ম্যালেরিয়া রোগ নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব এককভাবে দেওয়া হয়। ১৯৭৯ সালে ৭ এপ্রিল চালু করা হয় সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি (ইপিআই)। এ কর্মসূচির আওতায় দেশের ১ লাখ ২০ হাজার আউটরিচ রুটিন টিকাদান কেন্দ্রের কর্মসূচি এককভাবে স্বাস্থ্য সহকারীদের ওপর ন্যস্ত করা হয়।

 

টিকাদান কর্মসূচির মাধ্যমে স্বাস্থ্য সহকারীরা বর্তমানে ১০টি মারাত্মক সংক্রমিত রোগের (শিশুদের যক্ষ্মা, পোলিও, ধনুষ্টংকার, হুপিংকাশি, ডিফথেরিয়া, হেপাটাইটিস-বি, হিমোফাইলাস ইনফুয়েঞ্জা, নিউমোনিয়া ও হামে-রুবেলা) টিকা দেন।সারা দেশের ন্যায় স্বাস্থ্য সহকারীদের বেতন –বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কর্মবিরতি লাগাতার ভাবে চলবে।