কলমাকান্দায় লাউ ক্ষেতে মাঁচার কাছে বিধবাকে ধর্ষণ

কলমাকান্দায় লাউ ক্ষেতে মাঁচার কাছে বিধবাকে ধর্ষণ

কলমাকান্দা প্রতিনিধি :নেত্রকোনার কলমাকান্দায় লাউ ক্ষেতে মাঁচার কাছে কলা গাছের আড়ালে বিধবাকে (৩৫) দুই সন্তানের জনক জাকির হোসেনকে (৩৫) ধর্ষণের অভিযোগে আটক করেছে পুলিশ। সে পেশায় ইটভাটায় শ্রমিক। আজ সোমবার দুপুরে এক সন্তানের জননী বিধবা নিজে বাদী হয়ে কলমাকান্দা থানায় ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে ধর্ষণের মামলা দায়ের করেছেন।ধর্ষক জাকির হোসেন উপজেলার কালাইকান্দি গ্রামের মৃত আ. গফুরের ছেলে এবং তার স্ত্রী রয়েছে ও দুই সন্তানের জনক তিনি।স্থানীয়রা জানান , আজ (সোমবার) সকালে এক সন্তানের জননী ভিকটিম নিজ গ্রাম থেকে পার্শ্ববর্তী খারনৈ ইউনিয়নের  বাউসাম গ্রামে পাওনা টাকা আদায়ের জন্য যাচ্ছিল। এ সময় পার্শ্ববর্তী রংছাতী কালাইকান্দি গ্রামের জাকিরের সাথে দেখা হয় বিধবা নারীর। ভিকটিমের সাথে আগে থেকে জাকির হোসেন পূর্ব পরিচিত ছিল। পথে তাদের দু’জনের দেখা হলে জাকির ভিকটিমকে বলে আমিও বাউসাম কান্দাপাড়া গ্রামের দিকে যাচ্ছি বলে তার ভাড়া করা মোটর সাইকেলে ভিকটিমকে তোলে।বাউসাম গ্রামের কাছাকাছি আসলে ভাড়া করা মোটর সাইকেলটি বিদায় করে দেয় জাকির। পরে বাউসাম গ্রামের মো. আ. কুদ্দুছ মিয়ার বসত বাড়ির পূর্ব পাশে লাউ ক্ষেতে মাঁচার কাছে কলা গাছের আড়ালে ভিকটিমকে ধর্ষণ করে। ভিকটিমের আত্মচিৎকারে আশপাশে লোকজন এসে উদ্ধার করে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করে এবং ধর্ষক জাকির হোসেনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।কলমাকান্দার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সিরাজুল ইসলাম খান এ ঘটনার সত্যতা সমকালকে নিশ্চিত করে বলেন, আসামি জাকির হোসেন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের বিষয়টি স্বীকার করেছে। আজ (সোমবার) বিকেলে ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ এবং আসামিকে ২০০০ সালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধনী ২০০৩ এ ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক ধর্ষন করার অপরাধে গ্রেফতার দেখিয়ে  নেত্রকোনার আদালতে পাঠানো হয়েছে।