নেত্রকোনায় গলায় ওড়না প্যাঁচিয়ে  সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

নেত্রকোনায় গলায় ওড়না প্যাঁচিয়ে  সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

এ কে এম আব্দুল্লাহ্, নেত্রকোনা ঃ নেত্রকোনা আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী বুশ্রা আক্তার (১৩) গলায় ওড়না প্যাঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা শহরের মঈনপুর এলাকায় নিজ বসত ঘরে ফ্যানের সাথে গলায় ওড়না প্যাচিয়ে এই আত্মহত্যার ঘটনা ঘটায়। পরে পরিবারের লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে বুশরাকে উদ্ধার করে দ্রæত নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বুশরা সড়ক বিভাগে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারি পদে কর্মরত জসিম উদ্দিনের মেয়ে। 
       নিহতের ফুফু রেশমা জানায়, বুশরার এক ভাই দুই বোন। বড় ভাই নেত্রকোনা উচ্চ বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণিতে পড়ে। সে খুবই শান্ত প্রকৃতির মেয়ে। কারো সাথে কোন ঝগড়া বিবাদও নেই। তবে কি কারণে এঘটনাটি ঘটিয়েছে তিনি তা বলতে পারছেন না। 
     বুশরার বাবা জসিম উদ্দিন জানান, সকালে অফিসে যাওয়ার সময় তারা এক সাথে খেতে বসে। মেয়েকে ডিম ভাজি করে ভাত দিলেও অল্প খেয়ে ওঠে পরে। দুদিন ধরে চুপচাপ থাকায় কেউ কিছু জিগেস করলে বলে না। কিন্ত মাথা ব্যথা হচ্ছিল জানায়। পরে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তার ঘরের দরজা আটকানো থাকায় হঠাৎ সন্দেহ হলে বড় ভাই দরজা ভেঙ্গে দেখে গলায় ওড়না প্যাচিয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলছে। এরপর দ্রæত নামিয়ে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। 
      এ ব্যাপারে কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার ডাক্তার রায়হান খানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এখানে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়। 
       এ ব্যাপারে নেত্রকোনা মডেল থানার ওসি মোঃ তাজুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আত্মহত্যার কথা স্বীকার করে বলেন, কি কারণে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।