সরকারি জায়গা নিয়ে দুই পক্ষের দ্বন্দ্ব কলমাকান্দায় দোকানের মালামাল লুটপাটের অভিযোগ

সরকারি জায়গা নিয়ে দুই পক্ষের দ্বন্দ্ব কলমাকান্দায় দোকানের মালামাল লুটপাটের অভিযোগ

কলমাকান্দা  প্রতিনিধি :নেত্রকোনার কলমাকান্দায় জায়গা নিয়ে দুই পক্ষের দ্বন্দ্বে একটি দোকানের মালমাল লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সকালে উপজেলার কৈলাটী ইউনিয়নের সিধলী বাজারের পল্লী চিকিৎসক আ. হান্নান খান বাদী হয়ে কলমাকান্দা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

স্থানীয় লোকজন জানান, উপজেলার কৈলাটী ইউনিয়নের সিধলী বাজারের আবু তাহের দীর্ঘদিন ধরে ১নং খতিয়ান ভূক্ত সরকারি জায়গায় ঘর নির্মাণ করে পল্লী চিকিৎসক আ. হান্নান খানকে ভাড়া দেয়। আর ওই জায়গায় হান্নান একটি ঔষধের দোকান পরিচালনা করে আসছেন। গত বছর হান্নান ঘরের জায়গাটি তার নিজের নামে একসনা বন্দোবস্ত পাওয়ার জন্য কলমাকান্দা সহকারি কমিশনার (ভূমি) বরাবর একটি আবেদন করেন। আর এবিষয়টি জানতে পেরে আবু তাহের ভাড়াটিয়া হান্নানকে দোকান ছাড়তে বলে। হান্নান জায়গা ছাড়তে অস্বীকার করলে সামাজিক শালিশ বসে। শালিশের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হান্নান শনিবার ওই ঘর ছাড়ার কথা। কিন্তু হান্নান তার মায়ের অসুস্থতার কথা বলে ওইদিন ঘর ছাড়েননি। পরে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে আবু তাহেরের নেতৃতে আবুল বাসার, লাল মিয়া, কালা মিয়া, রহিছ মিয়া ও নুরুজ্জামান হান্নানের দোকানের তালা ভেঙে টাকাসহ মালামাল লুটপাট করে নেয়।

এবিষয়ে পল্লী চিকিৎসক আ. হান্নান খান বলেন, আমার মায়ের অসুস্থতার কারণে আমি ওইদিন ঘরটি ছাড়তে পারিনি। পরে সন্ধ্যায় আবু তাহেরের নেতৃতে আবুল বাসার, লাল মিয়া, কালা মিয়া, রহিছ মিয়া ও নুরুজ্জামান আমার দোকানের তালা ভেঙে ১লাখ টাকাসহ প্রায় ১০ লাখ টাকার মালামাল লুটপাট করে নিয়ে নেয়। পরে সোমবার সন্ধ্যায় পুলিশ আংশিক মালামাল উদ্ধার করে আমাকে ফেরত দেন।
লুটপাটের বিষয়টি অস্বীকার করে আবু তাহের বলেন, শালিশের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হান্নান ঘরটি শনিবার ছাড়ার কথা। কিন্তু বিভিন্ন অজুহাতে তিনি ঘর না ছেড়ে তালবাহানা শুরু করে। পরে স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে আমি তালা খুলে তার দোকানে থাকা মালামাল বস্তায় ভরে বাইরে রাখি। সোমবার সন্ধ্যায় স্থানীয় লোকজন ও পুলিশের সহযোগিতার ওই মালামাল হান্নানের কাছে বুঝিয়ে দেই।

এব্যাপারে কৈলাটী ইউনিয়নের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মো. আজগর আলী মুঠোফোনে
বলেন, সরকারি জায়গাটি অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করে আবু তাহের ও হান্নান ভোগ দখল করে রেখেছেন। ইতিমধ্যেই আমরা কৈলাটী ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে ওই স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য কলমাকান্দা সহকারি কমিশনার (ভূমি) বরাবর তালিকা প্রেরণ করেছি।

এব্যাপারে সিধলী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে পরিদর্শক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, আ. হান্নান খান বাদি হয়ে কলমাকান্দা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ ও বণিক সমিতির লোকজনের মাধ্যমে আ. হান্নানের মালামাল বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।