পূর্বধলায় পৃথক পৃথক স্থানে  পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

পূর্বধলায় পৃথক পৃথক স্থানে  পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

পূর্ব ধলা প্রতিনিধি : নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলায় পৃথক পৃথক স্থানে পনিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, পূর্বধলা সদর ইউনিয়নের ছোচাউড়া গ্রামের মোঃ আমিনুল ইসলামের চার বছরের ছেলে মাজহারুল ইসলাম রবিবার দুপুর আনুমানিক আড়াইটার দিকে ভাত খেয়ে বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে আম গাছের নিচে অন্য একটি ছেলের সাথে খেলা করছিল। হঠাৎ অসাবধানতা বশতঃ মাজহারুল পুকুরের পানিতে পড়ে যায়। এ সময় পাশে থাকা অন্য ছেলেটির ডাক চিৎকারে পরিবারের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে এসে পুকুরে তল্লাশী চালিয়ে মাজহারুলকে আশংকা জনক অবস্থায় উদ্ধার করে। পরিবারের লোকজন মাজহারুলকে দ্রæত পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।
     অপরদিকে পূর্বধলা উপজেলার ঘাগড়া ইউনিনের গিরিয়াসা গ্রামে দুপুরে কংশ নদীর পানিতে ডুবে সিয়াম (৯) নামক এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। 
     সিয়ামের স্বজনেরা জানায়, রবিবার দুপুরের দিকে সিয়াম তার মা ইয়াসমিনের সাথে নিয়ে নানার বাড়ীর কংশ নদীতে গোসল করতে যায়। মা ইয়াসমিন কাপড় ধোয়ার সময় সন্তান সিয়াম কংশ নদীর গোসল করতে নামে। এ সময় নদীর প্রবল ¯্রােতের পানিতে সিয়াম তলিয়ে যায়। নদীর পাড়ে দাঁড়ানো আরেকটি শিশু এ দৃশ্য দেখে সিয়ামের মাকে বিষয়টি বলে। সিয়ামের মায়ের ডাক-চিৎকারে আশেপাশের লোকজন দ্রæত এগিয়ে এসে নদীতে জাল ফেলে শিশু সিয়ামকে উদ্ধারের চেষ্টা চালায়। পরে স্থানীয় এক ডুবুরি বিকেল ৪টার দিকে শিশু সিয়ামকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে। 
   মৃত সিয়ামের বাবা পাশ্ববর্তী ময়মনসিংহ জেলার ধোবাউড়া উপজেলার রামনাথপুর গ্রামের মোজাম্মেল হোসেন বড় বউকে রেখে আরেকটি বিয়ে করায় দীর্ঘ ছয় বছর যাবত সে তার মাকে নিয়ে নানা মোফাজ্জল হোসেন ফনি মিয়ার বাড়িতে থেকে বড় হচ্ছিল। সে একটি মাদ্রাসায় পড়াশুনা করতো। এ ঘটনায় সিয়ামের নানার বাড়িতে শোকের ছায়া নেমেছে। 
       পূর্বধলা থানার অফিসার ইনচার্জ তৌহীদুর রহমান পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।