হাওরে রাষ্ট্রীয় প্রণোদনায় কৃষকের জন্য বরাদ্দ করা ধান কাটার মেশিন নিয়ে কৃষকদের হয়রানী বন্ধ করুণ সিপিবি নেত্রী কমরেড জলি তালুকদার

হাওরে রাষ্ট্রীয় প্রণোদনায় কৃষকের জন্য বরাদ্দ করা ধান কাটার মেশিন নিয়ে কৃষকদের হয়রানী বন্ধ করুণ সিপিবি নেত্রী কমরেড জলি তালুকদার

এ কে এম আব্দুল্লাহ, নেত্রকোনা ঃ নেত্রকোনা ৪ (মদন-মাহনগঞ্জ-খালিয়াজুরী) আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সিপিবি মনোনীত প্রার্থী কমরেড জলি তালুকদার সাংবাদিকদের কাছে ই-মেইলে প্রেরিত এক বিবৃতিতে বলেন, হাওরে রাষ্ট্রীয় প্রণোদনায় কৃষকের জন্য বরাদ্দ করা ধান কাটার মেশিন নিয়ে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্ণীতি হয়েছে। এই অনিয়ম ও দুর্ণীতির ফলে বর্তমান সমাজের দুষ্টুচক্র ভেঙ্গে সাধারণ কৃষকের পক্ষে রাষ্ট্রীয় প্রণোদনা পাওয়া প্রায় অসম্ভব।
    বিবৃতিতে তিনি বলেন, সংসারের খোরাকীর প্রয়োজনে আমি এ বছর নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলার ডিঙ্গাপোতা হাওরে বেশ কিছু পৈত্রিক সম্পত্তিতে বোরো ধানের আবাদ করেছি।  ধান কাটার জন্য আমি নিজে পাঁচ দিন চেষ্টা করেও সরকার নির্ধারিত দামে প্রণোদিত  মেশিন দিয়ে নিজের ধান কাটাতে পারিনি। রাষ্ট্রীয় প্রণোদনায় হাওরে ধান কাটার জন্য যে মেশিন বরাদ্দ করা হয়েছে, তার সুবিধা পেতে কৃষককে সীমাহীন হয়রানি ও বাড়তি অর্থ ব্যয়ের শিকার হতে হচ্ছে। প্রকৃত কৃষকদের গ্রæপ বা সমিতি গঠন করে তার মাধ্যমে মেশিন বরাদ্দের বদলে নিলাম ডেকে পয়সা ওয়ালা ও ক্ষমতাধরদের হাতে রাষ্ট্রীয় প্রণোদনার মেশিন তুলে দেয়ায় সাধারণ কৃষক এদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। তিনি কৃষকের সীমাহীন হয়রানীর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, কৃষকের ধানের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে প্রতি ইউনিয়নে সরকারি ক্রয় কেন্দ্র খুলে সরাসরি প্রান্তিক কৃষকের কাছ থেকে সরকার নির্ধারিত দামে ধান কিনতে হবে। তা হলে কৃষকরা বাঁচবে, বাঁচবে দেশ।