নেত্রকোনায় দরুণবালিকে সবুজ গ্রাম ঘোষণা

নেত্রকোনায় দরুণবালিকে সবুজ গ্রাম ঘোষণা

 নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ জলবায়ু পরিবর্তন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, দুষণ, বিপর্যয় ও  চারিদিকে পরিবেশ বিপন্নতার মাঝেও নেত্রকোনা সদর উপজেলার কাইলাটি ইউনিয়নের দরুণ বালি গ্রামের অক্সিজেন যুবসংগঠন, রাখালবন্ধু কৃষক সংগঠন, ফুলপাখি কিশোরী সংগঠন,  জৈব চাষীদল, নেত্রকোনা শিক্ষা, সংস্কৃতি পরিবেশ ও বৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির উদ্যোগে ও বেসরকারী গবেষণা প্রতিষ্ঠান বারসিকের সহযোগিতায় দরুণবালি গ্রামকে সবুজ গ্রাম হিসেবে ঘোষণা মধ্য দিয়ে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল সোমবার প্রধান অতিথি হিসেবে জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম এ ঘোষণা দেন। এ সময় কাইলাটি ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন, নেত্রকোনা শিক্ষা সংস্কৃতি বৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সভাপতি নাজমুল কবীর সরকার, সদস্য সচিব আলপনা বেগম, বন্ধুচুলার জেলা ব্যবস্থাপক বারসিকের আঞ্চলিক সমন্বয়কারী মো. অহিদুর রহমানসহ গ্রামের প্রবীণ, যুবক, কিশোর, শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের মানুষ উপস্থিত ছিলেন। গ্রামের যুবকরা প্রথমেই তাদের তিন বছরব্যাপী কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরেন।
  গ্রামকে সবুজায়নের অংশ হিসেবে প্রত্যেক বাড়িতে একটি করে সাজনা গাছ রোপন. ৫০টি ধোঁয়াবিহীন পরিবেশবান্ধব চুলা বিতরণ, গ্রামের কৃষকদের জন্য পলিথিন নয় পাটের ও কাপড়ের ব্যাগ বিতরণ করা হয়েছে ১০০টি,  পাখির প্রতি ভালোবাসা স্বরুপ গ্রামে গাছে গাছে ঝুলানো হয়েছে কলসী, যেখানে পাখি বসবাস করবে নিরাপদে, কেঁচো কম্পোস্ট তৈরীর জন্য কৃষকদের কাছে বিতরণ করা হয়েছে কেঁেচা, কবিরাজ আবদুল হামিদ কৃষক ও যুবদের মাঝে বিতরণ করেন ৩৩০টি ঔষধি গাছ। মধুচাষী মধুভাই মৌমাছি পালনের জন্য সবাইকে আহŸান জানান ও অতিথির মাঝে মধু বিতরণ করেন। কৃষক কালাচান কৃষকদের মাঝে কেঁচো বিতরণ করেন।
 পরিকল্পনা করা হয়েছে আগামি বছর গ্রামে লাগানো হবে ৫০০ শত নীম গাছ। গাছে গাছে ঝুলছে বাল্যবিবাহমুক্ত আমাদের গ্রাম, মাদক ছেড়ে খেলা ধর, সুস্থসুন্দর জীবন গড়, মৌমাছি বাঁচাও, ব্যাঙ বাঁচাও, কেঁচো বাঁচাও, পাখি বাঁচাও, গ্রামে কোনো ভিক্ষুক থাকবেনা, আমরা সবাই ভাই ভাই,রাসায়নিকের ব্যবহার কমিয়ে আনো জৈবসার ব্যবহার করো,পলিথিন বর্জন করো। গ্রামে রাস্তার পাশে টানানো হয়েছে পরিবেশ রক্ষায় ১০টি উপদেশ সমন্বিত ব্যানার। গ্রামের দুটি রান্না ঘরকে মডেল হিসেবে করা হয়েছে পরিচ্ছন্ন রান্না ঘর। গ্রামের যুব, কৃষক, কিশোরী, শিক্ষার্থীরা তাদের গ্রামকে সবুজ গ্রাম হিসেবে গড়ে তোলার জন্য অঙ্গীকার করেন।  
 নেত্রকোনা শিক্ষা সংস্কৃতি বৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সভাপতি নাজমুল কবীর সরকার বলেন, আমাদের সকলকেই সবুজ চিন্তা করতে হবে। কথায় ,ব্যবহারেও বিনয়ী হতে হবে। গ্রামকে পরিচছন্ন রাখতে হবে। মানুষে মানুষে সম্পর্ক ভালো রাখার জন্য সুন্দর সমাজ তৈরী হউক । গড়ে উঠুক সবুজ গ্রাম দরুণ বালি।
  সবুজ গ্রাম উদ্বোধন করে প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম বলেন, দরুণবালি গ্রামের যুবরা গ্রামকে সবুজ গ্রাম হিসেবে গড়ে তোলার জন্য যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে আমরা সকলেই তাদের সবুজ কাজকে স্বাগত জানাই এবং সাধ্যমত সহযোগিতা করতে চাই। এরকম সুন্দর চিন্তাকে সকল তরুণদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে। যুবকদের সকল উদ্যোগগুলো এই মুজিব বর্ষে সারা বাংলাদেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়–ক।