আমি বিএনপির সমর্থক কেউ প্রমান করতে পারলে রাজনীতি ছেড়ে দেবঃ সবুজ মিয়া

আমি বিএনপির সমর্থক কেউ প্রমান করতে পারলে রাজনীতি ছেড়ে দেবঃ সবুজ মিয়া

সমরেন্দ্র বিশ্বশর্মা ঃ  কেন্দুয়া উপজেলার কান্দিউড়া ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি সবুজ মিয়ার বিরুদ্ধে গত কয়েকদিন ধরে চলছে নানা অপপ্রচার। এ নিয়ে আওয়ামীলীগের সদস্যদের মধ্যে বিরাজ করছে উত্তেজনা। অপপ্রচার বন্ধের দাবীতে বুধবার সন্ধ্যার আগে প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ সবুজ মিয়া। তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, ছাত্র জীবন থেকেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রানীত হয়ে আওয়ামী ঘরানার রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এছাড়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সহ তিনটি সংসদ নির্বাচন ও দুটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জালালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র কমিটিতে যুগ্ম আহŸায়ক হিসেবে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী সমর্থনে কাজ করেছেন। ২০১৩ সালের ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের চ‚ড়ান্ত ভোটার তালিকায় ২১৬ ক্রমিকের ভোটার তিনি। কিন্তু ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের কতিপয় নেতাকর্মী তিনি সভাপতি হওয়ার পর তার কাছে দাবী তোলেন কান্দিউড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সম্মেলনকে সামনে রেখে ৬ জনকে কাউন্সিলর করার। তাদের ওই প্রস্তাব সরাসরি গ্রহণ না করায় তারা ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতিকে বিএনপির সমর্থক বলে বিভিন্ন অপপ্রচার চালাচ্ছেন। এছাড়া বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমেও তারা মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করছেন। ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ সবুজ মিয়া চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, তিনি বিএনপির সঙ্গে জড়িত ছিলেন, এমন কোন প্রমান কেউ দিতে পারলে সারা জীবনের জন্য তিনি রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়াবেন। সংবাদ সম্মেলনে তার সমর্থনে আরো বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল আওয়াল ভ‚ঞা, কান্দিউড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ারুল হক তালুকদার কনক, আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল লতিফ। অপ প্রচার প্রসঙ্গে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে কান্দিউড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ মোসলেম উদ্দিন বলেন, বিষ্ণুপুর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ সবুজ মিয়া আওয়ামীলীগ করেন বলেই তাকে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি নিযুক্ত করা হয়েছে। অতিতে তাকে নিয়ে বিতর্ক থাকলেও এ বিষয়ে আমাদের কাছে কোন প্রমানপত্র নেই। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী।