তাবিজ দিয়ে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে ছাত্রকে বলৎকার নেত্রকোনার খালিয়াজুরীতে অভিযুক্ত মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক আটক

তাবিজ দিয়ে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে ছাত্রকে বলৎকার নেত্রকোনার খালিয়াজুরীতে অভিযুক্ত মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক আটক

এ কে এম আব্দুল্লাহ, নেত্রকোনা ঃ তাবিজ দিয়ে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে এক ছাত্রকে  বলৎকার করার অভিযোগে খালিয়াজুরী ইসলামিয়া কওমী হাফিজিয়া মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওলানা বশিরুল ইসলামকে (৫৭) সোমবার দিবাগত গভীর রাতে মাদ্রাসা থেকে আটক করেছে পুলিশ।
      আটক মাওঃ বশিরুল ইসলাম ময়মনসিংহ জেলার ঈশ^রগঞ্জ উপজেলার বি-কাঠালিয়া গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে। তিনি ৮ সন্তানের জনক।
     বলাৎকারের শিকার ছাত্রটির মা কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাংবাদিকদের জানান, গত রবিবার রাত আনুমানিক ৪টার দিকে মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক বশিরুল ইসলাম আমার ছেলেকে তাবিজ দিয়ে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে টয়লেটের পাশে নিয়ে বলৎকার করে। এ সময় একই মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষক মিজানুর রহমান তা দেখে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটিকে এবং আমাদেরকে জানায়। পরে কমিটির সভাপতি গোলাম আবু ইছহাক বিষয়টি পুলিশকে জানালে পুলিশ সোমবার গভীর রাতে মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মাওঃ বশিরুল ইসলামকে আটক করে।
       তিনি আরো জানান, লম্পট বশিরুল আমার সন্তানকে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে বিগত ১ মাসের মধ্যে আরো কয়েকবার বলৎকার করেছে। আমার ছেলে ইসারা ইঙ্গিতে এসব বিষয় ইতিপূর্বে আমাকে জানানোর চেষ্টা করেছে। কিন্তু আমরা তখন তা বুঝতে পারিনি।
      খালিয়াজুরী থানার অফিসার ইনচার্জ এ টি এম মাহ্মুদুল হক ঘটনার সত্যত্বা স্বীকার করে বলেন, অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মাওঃ বশিরুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বশিরুল ছাত্রটিকে বলৎকার করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। ছাত্রটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে বলাৎকারের শিকার ছাত্রটির মা বাদি হয়ে প্রধান শিক্ষক মাওলানা বশিরুল ইসলামকে একমাত্র আসামী করে মঙ্গলবার খালিয়াজুরী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।